×
×

Blog Page

ব্যাংকের মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক লেনদেন ব্যাতিত দান কর
ব্যাংকের মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক লেনদেন ব্যাতিত দান কর

Publcihed by Admin 2 months ago

ইনবক্সের পাঠানো প্রশ্ন -১ঃ বাবার পেনশান এর টাকা থেকে নগদ টাকায় 
আমাকে ২০ লাখ টাকার  সঞ্চয় পত্র কিনে দিয়েছেন।  কিন্তু বাবার ব্যাংক
একাউন্ট থেকে আমার একাউন্টে টাকা ট্রান্সফার হয়নি অথবা বাবার ব্যাংক 
একাউন্ট থেকে ও  মূল্য পরিশোধ হয়নি। বাবার আয়কর রিটার্ন এ 
আমাকে গিফট দেখাতে চাচ্ছে আর আমি প্রথম রিটার্ন দিব।  আমার 
কন্সাল্টেন্ট বলেছে যেহেতু প্রপার চ্যানেল ম্যান্টেইন করে নাই তাই 
এই টাকা নাকি কালো টাকা আমাকে ১০%  ট্যাক্স দিতে হবে এবং অফিস 
ম্যানেজ করার জন্য আরো  বেশকিছু টাকা ঘুষ দিতে হবে! এখন আমার করনীয় কি?  

ইনবক্সের পাঠানো প্রশ্ন -২ঃ আমার মা আমাকে একটি 
ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছেন যা সরাসরি আমার নামে রেজিষ্ট্রেশন হয়েছে। 
বিক্রেতাকে টাকা পরিশোধ করেছেন আমার মায়ের একাউন্ট এর মাধ্যমে।  
আমি এই বছরই প্রথম রিটার্ন দিব ট্যাক্স অফিস এর লোক 
বলছেন ফ্ল্যাট এর টাকা আপনি কোথায় পেয়েছেন?  
মা টাকা তো আপনাকে দেয়নি। বিক্রেতার সাথে আপনার 
লেনদেন এর কোন  প্রমান নেই।  
সম্পূর্ণ টাকা আমার আয় ধরে নাকি  ট্যাক্স করবে।  
একজন আই টি পির সাহায্য চেয়েছিলাম উনি কয়েক লক্ষ 
টাকা চার্জ চাচ্ছে। যদি একটা পরামর্শ দিতেন। 

উপরের এমন আরো বেশ কিছু প্রশ্ন অথবা আলোচনা প্রায়ই দেখা 
যায় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় ভীতিকর আলোচনা এই 
হবে সেই হবে  অথচ আইন অনুযায়ী ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। 
ঘটনা দুটোর একটিতেও আইন অনুযায়ী কোন প্রকার ট্যাক্স আরোপ 
এর সুযোগ নেই। তবু যদি কেউ ভীত করে এড়িয়ে চলুন।  
নিজেই কিছুটা স্টাডি করুন। সব কিছুই স্পষ্ট করা আছে।

বিস্তারিতঃ আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪ এর ধারা ১৯ এর 
উপ ধারা ২১ এ বলা হয়েছে " করদাতা কর্তৃক ব্যাংকিং স্থানান্তর 
ছাড়া যে কোন অংক  ঋণ বা অগ্রিম অথবা দান গ্রহণ প্রদর্শন
করা হলে উক্ত অংকের টাকা সংশ্লিষ্ট বছর অন্যান্য উৎসের আয় 
হিসাবে কর যোগ্য হইবে।" 

লক্ষনীয় যে, উপরোক্ত ধারায় বলা হয়েছে " দাতা কর্তৃক  
করদাতার  ব্যাংক একাউন্টে স্থানান্তরকে স্পষ্ট করা হয়েছে।  
ছবিতে যুক্ত দুটো প্রশ্নের ক্ষেত্রে উপরোক্ত নিয়ম প্রতিপালিত হয়নি।  

*এইটুকু দেখে যদি থেমে যান অথবা কেউ যদি আপনাকে থামিয়ে 
দেয় তবে আপনি অন্ধকারে ডুবে যাবেন।  

উপধারা ২১ (সি) ii এ কি বলা হয়েছে  উপরোক্ত দান বা 
ঋণ যদি স্বামী স্ত্রী বা পিতা মাতার কাছ থেকে গৃহীত হয় এবং 
উক্ত লেনদেনের সাথে  যে কোন এক পক্ষের ব্যাংক হিসাব জরিত 
থাকে তবে উপ ধারার অধীনে আয় হিসাবে গণ্য হবে না। 
 
অর্থ আইন ২০১৮ এর প্রেক্ষিতে পরিপত্রের মাধ্যমে উপরোক্ত 
বিষয়টি উদহারন এর মাধ্যমে স্পষ্ট করা হয়েছে সুনির্দিষ্ট  
দৃশ্যমান সম্পদ অর্জনে  স্বামী স্ত্রী অথবা পিতা মাতা যে কোন 
একজনের ব্যাংক হিসাবে প্রতিফলন থাকলে সেই লেনদেনটি 
ব্যাংক স্থানান্তর হিসাবে গণ্য হবে।   
সুতরাং শুধুমাত্র ধারা ১৯ এর উপধারা ২১ পর্যন্ত দেখে বিভ্রান্ত হবেন না। 

সবাইকে ধন্যবাদ 

Aman Ullah Sarker